সামাজিক সমস্যা নির্মুলে সমাজের সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে : অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার

বিশেষ প্রতিনিধিঃ বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার ক্রাইম এ্যান্ড অপারেশন মোঃ এনামুল হক বলেছেন,শুধু পুলিশের একার পক্ষে সমাজের নানাবিধ সমস্যা দুর করা সম্ভব নয়।সামাজিক সমস্যা নির্মুল করতে হলে পুলিশকে সমাজের সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসতে হবে।সমাজে কিভাবে সামাজিক সমস্যার উদ্ভব ও নির্মুল করতে হবে সে সম্পর্কে সাধারন মানুষকে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে।ওপেন হাউজ ডে এমনই একটি প্লাটফর্ম যেখানে আপনারা নির্বিঘ্নে সমাজের নানা অসংগতি ও অভিযোগ তুলে ধরতে পারবেন।

মঙ্গলবার (১০ মে) সকাল ১১ টায় এয়ারপোর্ট থানায় অনুষ্ঠিত ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন, প্রত্যেকটা ব্যাক্তির সাফল্যের পিছনে একজন থাকেন।সফল মানুষ হিসেবে একা গড়ে ওঠার সুযোগ নেই। সবকিছু মিলেই একজন মানুষ সফল হন।সমাজে কোন ঘটনা ঘটার আগেই যদি আমরা সেই বিষয়টি নিস্পত্তি করতে পারি তাহলেই সমাজ থেকে অপরাধ প্রবনতা কমে যাবে।এ জন্য সমাজের যুবক, জনপ্রতিনিধি সহ সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।শুধু পুঁথিগত বিদ্যা না যুবকদের সামাজিক শিক্ষা নিয়ে চলতে হবে।ভাল পথে চলতে হবে।তাহলেই সমাজের শান্তি শৃংখলা বিরাজমান থাকবে।ভবিষ্যতে আমরা একটি সুন্দর সুশৃঙ্খল জাতি হিসেব প্রতিষ্ঠিত হতে পারবো

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপ-পুলিশ কমিশনার উত্তর মোঃ জাকির হোসেন মজুমদার বলেন,জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,শিক্ষক,মসজিদের ইমাম,সমাজের গন্যমান্য ব্যাক্তি এরা হচ্ছেন সামাজিক শক্তি।আমরা সমাজের সামাজিক শক্তিগুলোকে কাজে লাগিয়ে সামাজিক সমস্যা নির্মুল করতে চাই।পরিবারে বাবা মাকে সচেতন হতে হবে।প্রত্যেকে প্রত্যকের পরিবারের বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখলে এবং যার যার স্থান থেকে কাজ করলে সামাজিক অবক্ষয় দুর হবে। সমাজ থেকে অপরাধ প্রবনতা কমে যাবে।যুব সমাজ মাদকের ভয়াল থাবা থেকে রক্ষা পাবে।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধান অতিথিকে ফুল দিয়ে বরন করেন এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আমানুল্লাহ আল-বারী।

এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন)খন্দকার ফরিদ হোসেনের সঞ্চালনায় এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন,এয়ারপোর্ট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ সাদ্দাম হোসেন,এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আমানুল্লাহ আল-বারী,এয়ারপোর্ট থানা এলাকার কমিউনিটি পুলিশের সদস্য, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সংবাদ কর্মী ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।