করোনার নতুন ধরণ ‘নিওকোভ’ বেশি প্রাণঘাতী: চীনের গবেষণা

ডেস্ক রিপোর্টঃ বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের নতুন ধরনের সন্ধান মিলেছে বলে জানালেন চীনের একদল বিশেষজ্ঞ।
বলা হচ্ছে, এ ভ্যারিয়্যান্ট তুলনামূলক ভাবে বেশি প্রাণঘাতী। প্রতি তিন জন সংক্রমিতের মধ্যে একজনের মৃত্যু হতে পারে ‘নিওকোভ’ নামের এ ভ্যারিয়্যান্টে। সংবাদমাধ্যম টাইমস নাউ নিউজ এ খবর জানিয়েছে।
তবে, ‘নিওকোভ’ একেবারে নতুন কিছু নয়। ২০১২ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে পূর্ব এশিয়ার কিছু কিছু দেশে এ ভ্যারিয়্যান্টের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল। মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (Middle East respiratory syndrome) বা মার্স-কোভ বলা হতো একে। কোভিড-১৯ বা সার্স-কোভ-এর সঙ্গে মার্স-কোভ-এর উপসর্গগত বিশেষ পার্থক্য নেই। জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা এ ক্ষেত্রেও হয়। সর্বপ্রথম ‘নিওকোভ’-এর সন্ধান মিলেছিল দক্ষিণ আফ্রিকায়। মূলত বাদুড়ের শরীরে পাওয়া যায় ‘নিওকোভ’।
এদিকে, নিওকোভ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাশিয়ার ‘ভেক্টর রাশিয়ান স্টেট রিসার্চ সেন্টার অব ভাইরোলজি অ্যান্ড বায়ো-টেকনোলজি’ একটি বিবৃতি দিয়েছে।
বিবৃতিতে বলা হচ্ছে- চীনা বিশেষজ্ঞরা কোভিডের যে নয়া ধরণ নিয়ে সাবধান করছেন, তা নিয়ে এখনই চিন্তার কিছু নেই। মানব শরীর এ ভ্যারিয়্যান্টে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা খুব ক্ষীণ।
চীনা বিশেষজ্ঞদের নতুন গবেষণায় বলা হচ্ছে- প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছিল, নিওকোভ মানুষের ক্ষেত্রে তেমন বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়াবে না, শুধু অন্য প্রাণীদের ক্ষেত্রেই সংক্রমণ ঘটাতে পারে। কিন্তু পরে দেখা গেছে- এটি নিজেকে বদলে মানুষের শরীরে সংক্রমণ ঘটানোর মতো গঠন তৈরি করে নিচ্ছে।
নিওকোভ-এর উৎস
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, নিওকোভ প্রথমে বাদুড়ের শরীরে তৈরি হয়, সেখান থেকে ছড়িয়ে পড়ে উটের শরীরে। সেখান থেকে মানুষের শরীরে ঢোকে- এমনই একটা সন্দেহ রয়েছে। যদিও জিনোম সিকোয়েন্সিং না করলে এর উত্তর পাওয়া সম্ভব নয়।