বছরের প্রথম সংসদ অধিবেশন আজ

ডেস্ক রিপোর্টঃ একাদশ জাতীয় সংসদের ষোড়শ এবং এ বছরের প্রথম অধিবেশন রোববার বিকেল ৪টায় শুরু হচ্ছে।
সংবিধান অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আগেই এ অধিবেশন আহ্বান করেছেন।
বছরের প্রথম অধিবেশন হিসেবে সংবিধান অনুযায়ী, প্রথম বৈঠকে আজ রাষ্ট্রপতি সংসদে ভাষণ দেবেন। এর মধ্যে মন্ত্রিসভায় এ ভাষণ অনুমোদন করা হয়েছে। ভাষণে বর্তমান সরকারে বিগত ১৩ বছরের সফল কর্মকাণ্ড তুলে ধরা হবে।
সংসদের রেওয়াজ অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতির ভাষণে ধন্যবাদ প্রস্তাব এনে তার ওপর আলোচনা হবে। সে হিসেবে এ অধিবেশন দীর্ঘ হওয়ার কথা। কিন্তু, করোনা পরিস্থিতি আবার অবনতির দিকে যাওয়ায় অধিবেশন দীর্ঘ নাও হতে পারে।
সংসদ সচিবালয় থেকে এ অধিবেশন আপাতত ১০ অথবা ১২ কার্যদিবস চালানোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এর মেয়াদ বাড়ানো বা কমানো হতে পারে। রাষ্ট্রপতির ভাষণ এবং এর ওপর আলোচনা ছাড়াও বেশ কয়েকটি বিল উত্থাপন ও পাস হওয়ার কথা রয়েছে এ অধিবেশনে। এর আগে সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশন গত বছরের ১৪ নভেম্বর শুরু হয়ে ৯ কার্যদিবস পর্যন্ত চলে ২৮ নভেম্বর শেষ হয়। ওই অধিবেশনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ছিল।
সংসদের গত অধিবেশনে স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বিশেষ আলোচনায় রাষ্ট্রপতি সংসদে ভাষণ দেন। প্রধানমন্ত্রী ও সংসদনেতা কার্যপ্রণালি-বিধির ১৪৭ বিধির আওতায় প্রস্তাব (সাধারণ) উত্থাপন করেন। এর ওপর পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলের উপনেতা, সরকারি ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা আলোচনায় অংশ নেন।
এছাড়া, ওই অধিবেশনে সৃজনশীল অর্থনীতিতে অবদানের জন্য ইউনেস্কো থেকে বঙ্গবন্ধু পুরস্কার প্রবর্তন এবং প্রদান করায় ১৪৭ বিধিতে সংসদে সাধারণ আলোচনা শেষে ধন্যবাদ প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।
এদিকে, এ অধিবেশন নির্বিঘ্নে চলাচল নিশ্চিত করতে বেশ কিছু এলাকায় যান চলাচলে বিধিনিষেধ জারি করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। আজ সকালে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ বিধিনিষেধ জারি করা হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একাদশ জাতীয় সংসদের ষষ্ঠদশ অধিবেশন উপলক্ষে শনিবার মধ্যরাত ১২টা থেকে সব ধরনের অস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য, অন্যান্য ক্ষতিকারক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন এবং যেকোনো ধরনের সমাবেশ, মিছিল, শোভাযাত্রা, বিক্ষোভ প্রদর্শন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে যেসব এলাকায় নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকার কথা বলা হয়েছে সেগুলো হলো- ময়মনসিংহ রোডের মহাখালী ক্রসিং হতে পুরাতন বিমানবন্দর হয়ে বাংলামোটর ক্রসিং পর্যন্ত, বাংলামোটর লিংক রোডের পশ্চিম প্রান্ত হতে হোটেল সোনারগাঁও রোডের সার্ক ফোয়ারা পর্যন্ত, পান্থপথের পূর্ব প্রান্ত হতে গ্রিন রোডের সংযোগস্থল হয়ে ফার্মগেট পর্যন্ত, মিরপুর রোডের শ্যামলী মোড় থেকে ধানমণ্ডি-১৬ (পুরাতন-২৭) নম্বর সড়কের সংযোগস্থল, বেগম রোকেয়া সরণির সংযোগস্থল হতে পুরাতন নবম ডিভিশন (উড়োজাহাজ) ক্রসিং হয়ে বিজয় সরণির পর্যটন ক্রসিং, ইন্দিরা রোডের পূর্ব প্রান্ত থেকে মানিক মিয়া এভিনিউয়ের পশ্চিমপ্রান্ত, জাতীয় সংসদ ভবনের সংরক্ষিত এলাকা এবং এ সীমানার মধ্যে অবস্থিত সমুদয় রাস্তা ও গলিপথ।
একাদশ জাতীয় সংসদের ষষ্ঠদশ অধিবেশন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।