প্রথম ইনিংসে শতক পেরোলো পাকিস্তান

ডেস্ক রিপোর্টঃ  তাইজুলের ঘূর্ণিজাদুর মুখে ২ উইকেট হারিয়ে ৭৮ রান নিয়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে গিয়েছিল পাকিস্তান। তবে বিরতির পর বাবর আজম ও আজহার আলীর সাবধানী ব্যাটিংয়ে ১০০ পার করেছে সফরকারীদের সংগ্রহ।
প্রথম ৯ ওভার সামলেছেন বাংলাদেশের দুই পেসার- খালেদ আহমেদ ও ইবাদত হোসেন। দু’জনে প্রথম স্পেলে তেমন কোন পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি পাকিস্তানকে। প্রথম ৯ ওভারে স্কোরবোর্ডে ৩৪ রান তুলেছে অতিথিরা। এরপর স্পিন আক্রমণ আনে বাংলাদেশ। নিজের প্রথম স্পেলে আশা জাগান সাকিব আল হাসান। তবে রিভিউ নিয়েও পারলেন না পাকিস্তানের শুরুর জুটি ভাঙতে। অবশেষে পাকিস্তানের ওপেনিং জুটি ভাঙতে পেরেছেন তাইজুল।
১৯তম ওভারে ওয়াইড ক্রিজ থেকে লেংথ বল ভেতরে ঢোকান তাইজুল। শফিকের ব্যাটের ফাঁক দিয়ে বল আঘাত হানে অফ স্টাম্পে। ১১১ বলে ভাঙে ৫৯ রানের জুটি। ৫০ বলে ২৫ রান করে ফিরেছেন শফিক। একইভাবে ৩৯ রানে আবিদকে বিদায় করেন তাইজুল।
পাকিস্তানের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর ম্যাচটির একাদশে তিন পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে মুমিনুল হকের দল। দলে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান এবং খালেদ আহমেদ। আর অভিষেক হয়েছে তরুণ ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়ের।
টানা ওপেনিংয়ে ব্যর্থতায় পরিবর্তন আসা অনুমিত ছিল। প্রথম ম্যাচের পর টাইফয়েডের কারণে দল থেকে ছিটকে গেছেন ওপেনার সাইফ হাসান। তাই, ভাগ্য খুলে গেল মাহমুদুলের। বাংলাদেশের ৯৯তম টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক ক্যাপ পড়লেন যুব বিশ্বকাপজয়ী মাহমুদুল। অবশ্য, ঘরোয়া ক্রিকেটে ওয়ানডাউনে ব্যাট করেন মাহমুদুল। তবে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হলো ওপেনার হিসেবে।
আগের ম্যাচের একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন ইয়াসির আলী রাব্বি এবং আবু জায়েদ রাহী। তাঁদের জায়গায় দলের ফিরেছেন সাকিব আল হাসান এবং পেসার খালেদ আহমেদ।
বিশ্বকাপে পাওয়া হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে এতদিন ক্রিকেটে থেকে দূরে ছিলেন সাকিব। চোট কাটিয়ে মিরপুর টেস্ট দিয়ে ফিরলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।
অন্যদিকে, খালেদ বাংলাদেশ একাদশে ফিরেছেন আড়াই বছর পর। সবশেষ তিনি খেলেছেন হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে, ২০১৯ সালের মার্চে।
বাংলাদেশ একাদশে তিন পরিবর্তন আনলেও পাকিস্তান একই একাদশ নিয়ে মাঠে নেমেছে। চট্টগ্রাম টেস্ট জেতা দলে কোন পরিবর্তন আনেনি বাবর আজমের দল।