দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধু জাতীয় আবৃত্তি উৎসবের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্টঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের আয়োজনে শুরু হলো পাঁচ দিনব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় আবৃত্তি উৎসব’।

আজ ২৭ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রধান অতিথি হিসেবে পাঁচ দিনব্যাপী এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি উৎসবের উদ্বোধন করেন।

জন্মের সুবর্ণে জাগো সম্প্রীতির স্বরে, মুক্তির ডাক দেয় পিতা আজও ঘরে ঘরে’— এই স্লোগানকে সামনে রেখে আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত আবৃত্তি উৎসবের উদ্বোধন পর্বে জেলা পর্যায়ের আবৃত্তি সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিরা স্থানীয় পর্যায় থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন।

তারই ধারাবাহিকতায় উৎসব উদ্বোধন পর্বে পটুয়াখালীর এই প্রান্ত থেকে যুক্ত ছিলে পটুয়াখালী আবৃত্তি মঞ্চ ও মুক্তপ্রাঙ্গন,পটুয়াখালীর আবৃত্তি শিল্পীরা।

আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারী) সকাল ১০ টায় পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের দরবার হলে পটুয়াখালীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোঃ হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের কার্যনির্বাহী সদস্য মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্সের সঞ্চালনায় উৎসব উদ্বোধন পর্বে পটুয়াখালীর এ প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( শিক্ষা ও আইসিটি) ইসরাত জাহান,জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলমগী,জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ভিপি আব্দুল মান্নান, পটুয়াখালী আবৃত্তি মঞ্চের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মানস কান্তি দত্ত, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবৃত্তি শিল্পী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান খান প্রমুখ।

সারাদেশে একযোগে স্থানীয় আবৃত্তি সংগঠনগুলোর অংশগ্রহণে উদযাপিত হবে ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় আবৃত্তি উৎসব’।

তারই ধারাবাহিকতায় আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারী) বিকেল ৪ টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে থাকছে পটুয়াখালী আবৃত্তি মঞ্চ ও মুক্তপ্রাঙ্গন,পটুয়াখালীর আবৃত্তি শিল্পীদের পরিবেশনা।

বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের কার্যনির্বাহী সদস্য মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স। তিনি জানান, সারাদেশের তিন শতাধিক সংগঠনের সাড়ে চার হাজার আবৃত্তিশিল্পীর অংশগ্রহণে রাজধানীর বুকে দাঁড়িয়ে বৃহৎ পরিসরে উৎসবটি উদযাপন করার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে আমরা স্বিদ্বান্ত পরিবর্তন করি। তবে এতে খুব একটা খারাপ হয়নি, এর কারন এখন উৎসবটি প্রতিটি জেলায় উদযাপন হতে যাচ্ছে। এতে সারাদেশে আমাদের উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে পড়েছে। আজ গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত থেকে আমাদের এই উৎসবের শুভ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই উৎসবে প্রথমবারের মতো দেওয়া হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আবৃত্তি পদক’। আমাদের সারাদেশের আবৃত্তি শিল্পীদের কাছে এ এক বৃহৎ প্রাপ্তি। আগামীতে আমাদের আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের এই ধরনের আয়োজন অব্যাহত থাকবে।